আদিতমারীতে স্ত্রীর মামলায় গ্রেপ্তার উপজেলা স্বাস্থ্য সহকারী পরিমল চন্দ্র বসুনিয়া

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০২:৫৫ PM, ২৭ অগাস্ট ২০২০

লালমনিরহাট প্রতিনিধি: স্ত্রীকে নির্যাতন মামলায় লালমনিরহাটের আদিতমারী উপজেলার স্বাস্থ্য সহকারী ভবেশ চন্দ্র রায় ওরফে উত্তমকে (৩২) গ্রেপ্তার করেছে পুলিশ। বুধবার রাতে উপজেলার মহিষাশ্বহর এলাকা থেকে তাকে গ্রেপ্তার করে আদিতমারী থানা পুলিশ। গ্রেপ্তার ভবেশ চন্দ্র রায় ওরফে উত্তম উপজেলার পলাশী ইউনিয়নের বড়াইবাড়ি মহিষাশ্বহর গ্রামের মৃত নিরঞ্জন কুমার রায়ের ছেলে। তিনি আদিতমারী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে স্বাস্থ্য সহকারী পদে কর্মরত। মামলা সূত্রে জানা গেছে, ভবেশ চন্দ্র রায় উত্তম ২০০৯ সালের ২৪ আগস্ট মহিষখোচা গ্রামের মৃত জগদীশ চন্দ্রের মেয়ে বিথী রানীকে নোটারী পাবলিক ও সনাতন ধর্ম মতে বিয়ে করেন। অভিযোগ, বিয়ের এক বছর না যেতেই ভবেশ চন্দ্র স্ত্রী বিথী রানীর কাছে যৌতুক বাবদ আড়াই লাখ টাকা দাবি করেন। বিথীর বিধবা মা টাকা দিতে না পারায় স্বামী ভবেশ চন্দ্র স্ত্রী উত্তম বিথীকে মারপিট করে বাড়ি থেকে বের করে দেন এবং দ্বিতীয় বিয়ের হুমকী দেন। এ ঘটনায়, বিথী রানী আদালতের আশ্রয় নিয়ে তার স্বামী ও শ্বশুর বাড়ির লোকজনের বিরুদ্ধে একটি মামলা দায়ের করেন। এ মামলার বিচারকার্য শুরুর এক পর্যায়ে কৌশলী ভবেশ চন্দ্র আগামীতে যৌতুক দাবি করবেন না এবং স্ত্রীকে নির্যাতন বা দ্বিতীয় বিয়ে করবেন না মর্মে আপোষ মিমাংসায় লিখিত দিয়ে আদালত থেকে মামলার নিষ্পত্তি পান। কিন্তু সম্প্রতি তিনি আগের স্ত্রীর অনুমতি ছাড়া আপোষের শর্ত ভেঙে ভবেশ চন্দ্র দ্বিতীয় বিয়ে করেন। এতে বাধা দেওয়ায় পুনরায় যৌতুকের আড়াই লাখ টাকা দাবি করে বিথী রানীর উপর নির্যাতনের চালান। গত ৮ আগস্ট যৌতুকের আড়াই লাখ টাকা আনতে জোর করে বাবার বাড়ি পাঠানোর চেষ্টা করেন। কিন্তু টাকা আনতে বাবার বাড়ি না যাওয়ায় বিথী রানীকে তার স্বামী ভবেশ ও শ্বশুর বাড়ির অন্যরা মিলে বেদম মারপিট করে তার বাচ্চাসহ তাকে বাড়ি থেকে বের করে দেয়। এতে আহত অবস্থায় স্থানীয়দের সহায়তায় আদিতমারী হাসপাতালে ভর্তি হন আহত বিথী রানী। এ ঘটনায় বিচার চেয়ে ১৬ আগস্ট স্বামী ভবেশ চন্দ্রসহ ৩ জনের বিরুদ্ধে বিথী রানী আদিতমারী থানায় একটি মামলা দায়ের করেন। সেই মামলায় অভিযান চালিয়ে বুধবার রাতে ভবেশ চন্দ্র রায় ওরফে উত্তমকে গ্রেপ্তার করে আদিতমারী থানা পুলিশ। আদিতমারী থানার ওসি সাইফুল ইসলাম ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, ভবেশকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাকী আসামিদের গ্রেপ্তার চেষ্টা অব্যহত রয়েছে।

আপনার মতামত লিখুন :