Agaminews
Dr. Neem Hakim

কেমন আছে জাহাঙ্গীরনগরের পথশিশুরা


বার্তাকক্ষ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৮, ২০২০, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন /
কেমন আছে জাহাঙ্গীরনগরের পথশিশুরা

ইমন ইসলাম

জাবি প্রতিনিধি জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় হলো বাংলাদেশের অন্যতম একটি পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়।প্রায় ৭০০ একরের বিশাল ক্যাম্পাসটি প্রাকৃতিক সৌন্দর্যে ভরপুর।যে সৌন্দর্য উপভোগ করতে শিক্ষক-শিক্ষার্থীর পাশাপাশি রয়েছে ছিন্নমূল, অসহায় পথশিশুরা।

পথশিশুরা হলো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সৌন্দর্যের অন্যতম একটি ধারক।যাদের মধ্যে কারো বাবা নেই,মা নেই, থাকার জায়গা নেই,আহারের জন্য খাবার নেই। বাংলাদেশের অন্যান্য জায়গার মতো জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসেও অসংখ্য পথশিশু রয়েছে। যাদের অধিকাংশই সুবিধা বঞ্চিত,পরিবার থেকে বিচ্ছিন্ন।এসব পথশিশুরা জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের ক্যাম্পাসের মধ্যেই দিনপাত করতে থাকে।এদের মধ্যে কেউ চা বিক্রি করে,কেউ ফুল বিক্রি করে,কেউ বা প্লাস্টিকের বোতল, কাগজ কুড়িয়ে জীবিকা নির্বাহ করে থাকে।এসব পথশিশুরা দিনের বেশীরভাগ সময় চা , কাগজ কুড়িয়ে দিন পার করে এবং রাত হলে ক্যাম্পাসের বিভিন্ন আবাসিক ভবনের খোলা ছাদ, বারান্দা,যাত্রী ছাউনীর নিচে রাত্রি যাপন করে থাকে। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের সকল শিক্ষার্থীরা অনেক আন্তরিক ও দায়িত্বশীল। বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীরা এসব পথশিশুদের পাশে দাঁড়াতে এবং সেবা করতে বরাবরই দায়িত্বশীল ভূমিকা পালন করেছে।

বিশ্ববিদ্যালয়ে অনেক সংগঠন গড়ে উঠেছে,এসব পথশিশুদের সেবা করার উদ্দেশ্যে। যে ক্যাম্পাসের রাস্তাঘাট পথশিশুদের পদধুলিতে মুখরিত থাকতো,আজ সেই ক্যাম্পাসের রাস্তাঘাট শূন্য। নেই কোন হাসি।বলছে না ভাই চা খাবেন? সত্যি বেদনাদায়ক। আজ এই পথশিশুদের তাদের পরিবার, বাবা-মায়ের সাথে থাকার কথা ছিল। অথচ ভাগ্যের কি পরিহাস, সামান্য মাথা গোঁজার ঠাঁই টুকু পাচ্ছে না। একটি রাষ্ট্রে জম্ম নেওয়া প্রতিটি শিশুকে বলা হয়ে থাকে আগামীর ভবিষ্যৎ। অথচ আজ দেশের কয়েক কোটি শিশু পরিবার, সমাজ, শিক্ষা, বেঁচে থাকার মৌলিক অধিকার হারিয়ে নিঃস্ব জীবন যাপন করছে। বর্তমান করোনা মহামারীতে গত ১৭ মার্চ থেকে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাস বন্ধ রয়েছে। নেই কোন শিক্ষার্থী। শুনশান নীরবতা বিরাজ করছে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে।এই অবস্থায় পথশিশুদের জীবিকা নির্বাহের পথটিও বন্ধ হয়ে গেছে।

পরিবার,সমাজ থেকে বিচ্ছিন্ন এসকল পথশিশুরা বেঁচে থাকার তাগিদে জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসকে আশ্রয়স্থল হিসেবে বেছে নিয়েছিল,আজ করোনা ভাইরাসের কারণে ক্যাম্পাস বন্ধ হয়ে যাওয়ায় তাদের সেই সামান্য আশ্রয়স্থল টুকু হারিয়ে নিঃস্ব হয়ে পড়েছে। জাহাঙ্গীরনগরের প্রতিটি পথশিশু শুধু পথশিশু নয় তারা হলো বিশ্ববিদ্যালয়ের সম্পদ।আর এই মুল্যবান সম্পদকে বাদ দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রকৃত উন্নয়ন এবং সৌন্দর্য রক্ষা সম্ভব নয়।তাই এই দুঃসময়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রতিটি শিক্ষার্থীর পাশাপাশি সকল শিক্ষক সর্বোপরি বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশাসনের উচিত বিশ্ববিদ্যালয়ে অবস্থানরত পথশিশুদের পাশে দাঁড়ানো। জাহাঙ্গীরনগর বিশ্ববিদ্যালয়ের পথশিশুরা শুধু ক্যাম্পাসের সৌন্দর্য নয় ,তারা জাহাঙ্গীরনগরের অহংকার।