Agaminews
Dr. Neem Hakim

অনলাইন গেমে আসক্তি,সঙ্কায় দেশের শিশু-কিশোররা


বার্তাকক্ষ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৭, ২০২০, ১২:৩৮ অপরাহ্ন /
অনলাইন গেমে আসক্তি,সঙ্কায় দেশের শিশু-কিশোররা
ইমন ইসলাম
র্তমান সময়ে সবচেয়ে জনপ্রিয় একটি মাধ্যম হলো অনলাইন। মানুষের দৈনন্দিন জীবনের সাথে ওতপ্রোতভাবে জড়িয়ে আছে অনলাইন মাধ্যমটি। মানুষ তার জীবিকা নির্বাহ করা থেকে শুরু করে সামাজিক যোগাযোগ বৃদ্ধি ও সম্পর্ক উন্নয়নে জনপ্রিয় এই মাধ্যমটি ব্যবহার করছে। বর্তমান করোনা মহামারী পরিস্থিতিতে স্বাস্থ্যবিধি রক্ষা খুবই গুরুত্বপূর্ণ একটি বিষয়।সাস্থ্যবিধি রক্ষার ক্ষেত্রে অনলাইন মাধ্যম সহায়ক ভূমিকা পালন করছে।
অনলাইন মাধ্যম ব্যবহার করে যেমন জীবিকা নির্বাহ, যোগাযোগ রক্ষা হয়, ঠিক তেমনি ভাবে বিনোদন প্রদানের ক্ষেত্রেও অনলাইন অন্যতম একটি মাধ্যম। বর্তমান করোনা ভাইরাসের এই দুঃসময়ে দেশের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠান সমূহ বন্ধ রয়েছে।যার কারণে দেশের সকল শিশু-কিশোররা বাড়িতেই অবস্থান করছে।যার ফলে শিশু-কিশোররা অবসর সময় কাটাতে বেছে নিয়েছে অনলাইন গেম। বর্তমান দেশের ৭৫%শতাংশ শিশু কিশোর অনলাইন মাধ্যমে প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে যুক্ত।ফ্রি ফায়ার,পাবজি,সিওসি হলো বর্তমান শিশু কিশোরদের সবচেয়ে জনপ্রিয় কিছু অনলাইন গেম। দীর্ঘ সময় ধরে গেম খেলার ফলে শিশু-কিশোররা মানসিক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে পড়ার সম্ভাবনা রয়েছে। দীর্ঘ সময় ধরে স্ক্রীনের দিকে তাকিয়ে থাকলে শিশু কিশোরদের চোখে সমস্যা দেখা দিতে পারে।যার ক্ষতিকর প্রভাব সরাসরি মস্তিষ্কে প্রভাব ফেলবে। আমরা জানি শিশুকাল হলো মেধা বিকাশের উপযুক্ত সময়।
অনলাইন গেমের ক্ষতিকর প্রভাব শিশুদের মেধা বিকাশে প্রতিবন্ধকতা সৃষ্টি করতে পারে। বর্তমান দেশের বিভিন্ন সংগঠন ও সংস্থার জড়িপে দেখা যায় কিশোর বা প্রাপ্তবয়স্কদের তুলনায় শিশুরাই সবচেয়ে বেশি অনলাইন গেমের প্রতি আসক্ত হয়ে পড়ছে। অনলাইন গেমের আসক্তি শিশু কিশোরদের মধ্যে বিভিন্ন ধরনের শারীরিক ও মানসিক সমস্যার জন্ম দিয়ে থাকে। শিশু কিশোররা দিনের বেশীরভাগ সময় অনলাইন গেমে ব্যয় করায় , চারপাশের মানুষদের সাথে যোগাযোগ রাখতে পারে না।তার ফলে পরিবারসহ চারপাশের মানুষদের সাথে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়ে। দীর্ঘ সময় গেম খেলার ফলে শিশু-কিশোররা তাদের সু-স্বাস্থ্যের প্রতি নজর দিতে পারে না।যার কারণে তারা বিভিন্ন শারীরিক সমস্যায় আক্রান্ত হয়ে থাকে।
বিশেষজ্ঞদের মতে, অনলাইন গেম খেলা খারাপ নয় ,তবে অতিরিক্ত গেম খেলার ফলে শিশু-কিশোরদের মানসিক সাস্থ্যঝুকির সম্ভাবনা থাকে।যা আসক্তির জন্ম দেয়। অনলাইন গেম আসক্তির ফলে কিশোররা বিভিন্ন সাইবার ক্রাইম নামক অপরাধে জড়িয়ে পড়ছে।যা মোটেই একটি রাষ্ট্রের জন্য শুভকর নয়। শিশুরা যাতে অনলাইন গেমে আসক্ত হয়ে না পড়ে তার জন্য দরকার বাবা-মায়ের সচেতনতা ও সন্তানদের প্রতি নজর রাখা। আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষ্যৎ।আর সেই শিশুদের স্বাভাবিক ও সুস্থ ভাবে গড়ে তুলতে প্রতিটি বাবা-মায়ের সচেতনতা ও দায়িত্বশীলতা খুবই গুরুত্বপূর্ণ।