Agaminews
Dr. Neem Hakim

শীতের কাপড়ে সৌন্দর্য ফিরে পাচ্ছে মার্কেটগুলো


বার্তাকক্ষ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ২৫, ২০২০, ৭:৫৮ অপরাহ্ন /
শীতের কাপড়ে সৌন্দর্য ফিরে পাচ্ছে মার্কেটগুলো

 স্বীকৃতি বিশ্বাস

 ঋতু বৈচিত্রের দেশ আমাদের বাংলাদেশ। ঋতু পরিক্রমায় শীতের সৌন্দর্য ফিরে আসতে শুরু গত কয়েকদিন। আর শীত শুরু হওয়ার সাথে সাথে যশোরে বিপণী বিতান গুলোতে শীতের পোষাকের সাজ সাজ রব।শীতের বিভিন্ন ধরনের গরম কাপড় আসতে শুরু করেছে শহরের বাজার গুলোতে এবং এই সব দোকানে শুরু হয়েছে শীতের কাপড়ের বেচাকেনা।

যশোরের বিপনীবিতানগুলো ঘুরে দেখা যায় নারী-পুরুষ ও শিশুদের বিভিন্ন ধরনের সোয়েটার, কার্ডিগান, কোট, জ্যাকেট, ব্লেজার, শাল, টুপি ও মাফলারে। শহরের অভিজাত বিপনীবিতান সিটি প্লাজা, জেস টাওয়ার, মুজিব সড়কের ফ্যাশন হাউজ থেকে শুরু করে কালেক্টরেট মার্কেট এবং সব ধরনের ক্রেতাদের বাজার বলে খ্যাত যশোর ইনস্টিটিউট মার্কেট-সর্বত্রই শুরু হয়েছে গরম কাপড়ের বেচাকেনা।

সিটি প্লাজায় পুরুষদের ব্লেজার বিক্রি হচ্ছে সর্বনিম্ন ৫শত টাকা থেকে ৩ হাজার টাকায়। সোয়েটার ৮শত টাকা থেকে ১ হাজার ২শত টাকা। কোটি ১ হাজার টাকা থেকে ১ হাজার ২শত টাকা। মেয়েদের বিভিন্ন ধরনের সোয়েটার ও কার্ডিগান ৮শত’ টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা। মুজিব সড়কের ফ্যাশন হাউজগুলোতে পাওয়া যাচ্ছে বিভিন্ন ধরনের শীত কাপড়। এখানকার শোরুমে কোট পাওয়া যাচ্ছে ১ হাজার ৮শত’ টাকা থেকে ২ হাজার ৫শত’ টাকায়। বিভিন্ন ধরনের চাদর ৭শত’ ৫০ টাকা থেকে ২’ হাজার ৫শত’ টাকা। নারী, পুরুষ ও শিশুদের বিভিন্ন সোয়েটার পাওয়া যাচ্ছে ১ হাজার টাকা থেকে ৪ হাজার টাকা পর্যন্ত। জ্যানথিকের ম্যানেজার রবিউল ইসলাম সাদেক বলেন, বিক্রি সবে শুরু হয়েছে।

সামনে আরও বাড়বে। কালেক্টরেট মার্কেটে নারী ও পুরুষের বিভিন্ন ধরনের সোয়েটার ও কার্ডিগান বিক্রি হচ্ছে ৮শত টাকা থেকে ২’ হাজার ৫শত টাকায়। ব্লেজার ১ হাজার টাকা থেকে ২ হাজার টাকা। বাচ্চাদের ব্লেজার সেট ১ হাজার টাকা। সোয়েটার ও কার্ডিগান ৫শত’ টাকা থেকে ৮শত’ টাকা। শাল বিক্রি হচ্ছে সর্বনিম্ন ২শত’ ৫০ টাকা থেকে সর্বোচ্চ ২’ হাজার টাকায়। সর্বসাধারনের কাছে চির পরিচিত ও চিরচেনা পুরাতন কাপড়ের জন্য বিখ্যাত ইনস্টিটিউট মার্কেটের দোকানে সোয়েটার, কার্ডিগান, টুপি, মাফলার, হাতমোজা, পামোজা, গাউন, কোট, জ্যাকেটের সরবরাহ দিন দিন বাড়ছে । দাম শুরু হয়েছে ৫০ টাকা থেকে ১ হাজার টাকা বা তারও বেশি। এই মার্কেটের বিক্রেতা বাদল হোসেন বলেছেন, এক সপ্তাহ হচ্ছে এখানে ক্রেতারা শীত কাপড় কিনতে শুরু করেছেন।