রামগঞ্জের গর্বিত সন্তান জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:১৭ AM, ২৬ অগাস্ট ২০২০

জাকির পাটোয়ারী :-
যুগ যুগ ধরে রামগঞ্জের বহু গর্বিত সন্তানরা মেধা,সততায় ও কর্মদক্ষতায় অবদান রেখে শ্রেষ্ঠত্বের কৃর্তিত্ব অর্জন করেন৷ তাঁদের অালোয় অাজ দেশব্যাপী অালোকিত রামগঞ্জ৷ গর্বিত রামগঞ্জবাসী৷ সে সব কৃতিমান ব্যক্তিদের মধ্যে একজন খুলনা জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ হেলাল হোসেন (পিএএ)৷

তিনি দুই দু’বার দেশসেরা শ্রেষ্ঠ জেলা প্রশাসক হিসেবে রাষ্ট্র থেকে সর্বোচ্চ স্বীকৃতি পিএএ পদক লাভ করেন৷ এ ছাড়াও একবার শ্রেষ্ঠ জেলা প্রশাসক আইসিটি পদক ও একবার শ্রেষ্ঠ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা (UNO) নির্বাচিত হয়েছেন৷
মোহাম্মদ হেলাল হোসেন লক্ষ্মীপুর জেলার রামগঞ্জ উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের হিরাপুর গ্রামে এক মুসলিম সম্ভ্রান্ত পরিবারে ১৯৭৪ সালে জন্ম গ্রহন করেন৷

তিনি নিজ জন্মস্থান ভাটরা উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৮৯ সালে এসএসসি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ফিলোসফিতে অনার্স ও মাষ্টার্স শেষে ২০তম বিসিএস ক্যাডার সার্ভিস পরিক্ষায় উর্ত্তীন হন৷ ২০০১সালে সিলেট বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে সহকারী কমিশনার হিসেবে কর্মজীবন শুরু করেন৷ এমবিএ ও পিজিডি ডিগ্রীও অর্জন করেন এ মেধাবী কর্মকর্তা৷ বর্তমানে খুলনা জেলা প্রশাসক ও জেলা ম্যাজিষ্ট্রেট হিসেবে কর্মরত অাছেন৷ এর পূর্বে তিনি খাদ্য মন্ত্রীর একান্ত সচিব ছিলেন। দাম্পত্য জীবনে তাঁর স্ত্রী আমেনা আক্তার একজন কলেজ শিক্ষক এবং ১ছেলে ও ২ মেয়ের জনক৷

মোহাম্মদ হেলাল হোসেন নিজ জন্মস্থানকে ভালোবেসে এলাকার মানুষের সুখেদুঃখে যোগাযোগ রেখে যাচ্ছেন৷ তিনি তাঁর মরহুম পিতার নামে আবদুর রশিদ ফাউন্ডেশন গড়ে তোলে এলাকার গরীব অসহায় মানুষদের সহযোগীতা ও উন্নয়নে ব্যাপক ভুমিকা রাখছেন৷ ভাটরা ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন মিঠু, রামগঞ্জ রেসিডেন্সিয়াল স্কুল এন্ড কলেজে অধ্যক্ষ মোঃ আনোয়ার হোসেন পাটোয়ারীসহ অনেকে জানান, রামগঞ্জের বহু লোক বিভিন্ন বিভাগে সরকারের উচ্চ পদস্থ কর্মকর্তা হিসেবে কর্মরত আছেন কিন্তু কর্মক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠ কয়জন হতে পারেন৷ মোহাম্মদ হেলাল হোসেন তাঁর কর্মক্ষেত্রে শ্রেষ্ঠত্ব অর্জনে আমরা রামগঞ্জবাসী গর্বিত৷

0

আপনার মতামত লিখুন :