Agaminews
Dr. Neem Hakim

শ্রীপুরে শিশু ধর্ষণ! বিচার দাবিতে অনশনে মা রাসেল মন্ডল


বার্তাকক্ষ প্রকাশের সময় : নভেম্বর ৯, ২০২০, ১:৫৫ পূর্বাহ্ন /
শ্রীপুরে শিশু ধর্ষণ! বিচার দাবিতে অনশনে মা রাসেল মন্ডল

 শ্রীপুর (গাজীপুর প্রতিনিধি

একটি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পঞ্চম শ্রেণিতে পড়ুয়া ১৩ বছর বয়সী নিজের শিশুকে ধর্ষণের বিচার চেয়ে প্রধানমন্ত্রীর হস্তক্ষেপ চেয়েছেন গাজীপুরের শ্রীপুরের এক মা। রোববার (৮ নভেম্বর) দুপুরে উপজেলা প্রশাসনের সামনে তিনি প্লেকার্ড হাতে অনশনে দাঁড়িয়ে ছিলেন তিনি। খবর পেয়ে থানা পুলিশ ওই নারীকে নিয়ে যায় ও মামলার প্রস্তুতি গ্রহণ করে।

অনশনে দাঁড়ানো নির্যাতিতা শিশুর মা বলেন, গত ১০ অক্টোবর তিনি ব্যক্তিগত কাজে ঢাকা গিয়েছিলেন। এই সুযোগে ১১অক্টোবর তার ওই শিশু মেয়েকে পাশের বাড়ির রফিকুল ইসলাম নামের এক ব্যক্তি ডেকে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা করেন। সেদিন মেয়ের ডাক চিৎকারে ব্যর্থ হলেও পরদিন ১২ অক্টোবর সন্ধ্যা সাতটায় মেয়েকে আবারও তার বাড়িতে ডেকে নিয়ে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। এবং এই ঘটনাটি কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেন। মেয়েটি তার এক স্বজনের কাছে পুরো ঘটনাটি বলে। এর মধ্যে ১৮ অক্টোবর ওই নারী ঢাকা থেকে ফিরলে মেয়ে ঘটনাটি তাকেও জানায়।

এই ঘটনায় তিনি ওইদিন শ্রীপুর থানায় অভিযোগ দায়ের করতে যান। থানার এক কর্মকর্তা তাকে গালিগালাজ করে থানা থেকে বের হয়ে যেতে বলেন। কিন্তু তিনি ওই কর্মকর্তার নাম বলতে পারেননি। এরপর তিনি র‌্যাব-১ গাজীপুর ক্যাম্পে গিয়ে ঘটনা জানালে তারা তাকে থানায় মামলা করতে পরামর্শ দেন। ওই নারী বলেন, ‘থানায় গিয়ে বকা খেয়েছি, এখন কি আর গেলে কাজ হবে? তাই বিচার না পেয়ে আমি প্রধানমন্ত্রীর কাছে বিচার চেয়ে অনশনে দাঁড়য়েছিলাম’। তিনি আরও বলেন, অনশণে দাঁড়ানো অবস্থায় শ্রীপুর থানা থেকে এক কর্মকর্তা এসে তাকে থানায় নিয়ে গিয়েছেন। থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা তার সাথে ভালো আচরণ করেছেন। একজন কর্মকর্তার ব্যবস্থাপনায় মামলা নেওয়ার প্রস্তুতিও গ্রহণ করেছেন ওই ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা।

সাংবাদিক (পরিচয়ধারী) স্থানীয় দুলাল মিয়ার নেতৃত্বে আরো কয়েকজন ব্যক্তি ঘটনাটি মিমাংসার জন্য চাপ দেয় জানিয়ে ওই নারী বলেন, এ ঘটনায় মিলন বাজারে স্থানীয় বিচারক শায়েব আলী, আবুল হোসেন, শফিকসহ একাধিক ব্যক্তিরা সালিসে বসে আমাকে বললেও আমি সেখানে যায়নি। পরে তারা আমার দেবরের মাধ্যমে আমাকে জানায় এ বিচার করতে পারবো না। এ বিষয়ে সালিসি বোর্ডের কয়েকজনের সঙ্গে যোগাযোগ করেও কারো বক্তব্য নেয়া সম্ভব হয়নি। শ্রীপুর থানার উপ-পরিদর্শক (এস আই) কামরুল ইসলাম জানান, খবর পেয়ে ওই নারীকে নিয়ে থানায় গিয়ে মামলা দায়েরের জন্য সকল সহযোগীতা করা হয়। পরে ওই নারীকে সাথে নিয়ে নির্যাতনের শিকার মেয়েটিকে আনতে তার বাড়িতে যাওয়া হয়। শ্রীপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খোন্দকার ইমাম হোসেন জানান, নির্যাতিতা শিশুর মায়ের দেয়া অভিযোগের ভিত্তিতে এ ঘটনায় একটি মামলা হয়েছে। আসামী ধরতে পুলিশের অভিযান চলমান।