Agaminews
Dr. Neem Hakim

নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলুন


বার্তাকক্ষ প্রকাশের সময় : অক্টোবর ২৩, ২০২০, ১১:৫৪ পূর্বাহ্ন /
নারীর প্রতি সহিংসতা রোধে সামাজিক আন্দোলন গড়ে তুলুন
স্টাফ রিপোর্টার
করোনার সংক্রমণ ঠেকাতে সারা বিশ্বের ন্যায় বাংলাদেশেও বিভিন্ন জায়গায় দীর্ঘদিন অঞ্চলভিত্তিক লকডাউন চলমান ছিল। ফলে নারী-পুরুষ সবাই ঘরবন্দী থাকার কারণে এই দুর্যোগ নারী ও পুরুষকে ভিন্ন মাত্রায় প্রভাবিত করেছে।বাংলাদেশের সমাজব্যবস্থায় নারীর জীবন এবং স্বাধীনতা শুধু পরিবার নয়; বরং গোটা সমাজই তা নির্ধারণ করে। করোনাকালে নারী নির্যাতন ও নারীর প্রতি সহিংসতা বেড়ে যাওয়ার কারণে জাতিসংঘ একে কোভিড-১৯–এর ছায়া মহামারি হিসেবে চিহ্নিত করেছে।
করোনাকালে নারী নির্যাতন শুধু দরিদ্র নয়; বিভিন্ন উন্নত দেশেও পারিবারিক সহিংসতার ঘটনা বেড়ে গেছে। অথচ দৈনন্দিন ব্যস্ততা ছেড়ে লকডাউনের কারণে দাম্পত্য জীবনে পর্যাপ্ত সময় দেওয়ার ফলে পরিবারের পারস্পরিক বোঝাপড়ায় উন্নতি ঘটার কথা ছিল।পুরুষেরা অধিকাংশ সময় ঘরে থাকার ফলে তাদের জীবন ও জীবিকা নিয়ে দুশ্চিন্তা বেড়ে গেছে, কর্মহীন হয়ে পড়ায়, কর্মসংস্থান না থাকায় অর্থসংকটে ভুগছে। ফলে তাদের মধ্যে অবসাদ, মানসিক চাপ, দুশ্চিন্তা বেড়ে যাওয়ায় অনেকেই নারীর প্রতি নির্যাতন করছে। গ্রামে এ অবস্থা আরও শোচনীয়। অনেক পরিবার চরম খাদ্যসংকটে ভুগছে। আর্থিক দুরবস্থার ফলে তারা অপ্রাপ্তবয়স্ক মেয়েদের বিয়ে দিয়ে দিচ্ছে। ফলে করোনাকালে বেড়ে গেছে বাল্যবিবাহের ঘটনাও। এভাবে নারীদের নির্যাতিত হওয়ার পেছনে মূলত কাজ করছে যুগ যুগ ধরে চলা প্রচলিত সামাজিক দৃষ্টিভঙ্গি।
এ বিষয়টি মাথায় রেখে সবাই নিজ জায়গা থেকে নারীর প্রতি সহিংসতার বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়াই, প্রতিরোধ করি নারী নির্যাতন এই প্রতিপাদ্য সামনে রেখে চুয়াডাঙ্গা জেলা প্রশাসনের নির্দেশনায় উপজেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জেলাব্যাপী অনুষ্ঠিত হলৌ র্যালি ও আলোচনা সভা।
সভায় বক্তারা বলেন সময় এসেছে মানসিকতা ও দৃষ্টিভঙ্গি পরিবর্তন করার। ধর্মীয় অনুশাসন মেনে নারীকে তার সঠিক মর্যাদা দানের। এজন্য অভিভাবকদের সংকীর্ণ মানসিকতার পরিবর্তন ,পারিবারিক সহিংসতা প্রতিরোধে পরস্পরের প্রতি বিশ্বাস ও ভালোবাসা জাগ্রত রাখতে হবে। প্রচলিত আবদ্ধ সাংস্কৃতিক দৃষ্টিভঙ্গির পরিবর্তনের মাধ্যমে নারীর প্রতি শ্রদ্ধাবোধ জাগ্রত করতে হবে। বৈষম্যের মূল কারণ বের করে সমাধান এবং মেয়েদের প্রকৃত স্বাধীনতা দিতে হবে। পুরুষ ও নারী পরস্পরের প্রতিপক্ষ নয়। সমাজে নারী–পুরুষের যে ন্যায্য অধিকার ও গুরুত্ব রয়েছে; উভয় মিলে যে অভিন্ন সত্তা, এই বোধটুকু সমাজের সবাইকে গভীরভাবে উপলব্ধি করতে পারলেই আমরা নারীর প্রতি সহিংসতামুক্ত সমাজ গড়তে পারব।