গাইবান্ধায় মামলার প্রতিপক্ষকে ইয়াবা ট্যাবলেট দিয়ে ফাঁসাতে গিয়ে ডিবি পুলিশের হাতে দুই জন আটক

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৭:২৬ PM, ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০

 মোঃশরিফুল ইসলাম সবুজ,স্টাফ রিপোর্টার
গাইবান্ধা জেলার গোয়েন্দা শাখার এসআই মোঃ জহুরুল হকের নেতৃত্বে গত রাতে মাদক বিরোধী অভিযান পরিচালনা কালে ইং ১৯-৯২০২০ তারিখ রাত ৩.১৫ ঘটিকা সময় খোলা হাটি ফকির পাড়া জামে মসজিদ এর নিকট (১)মোঃ রায়হান মিয়া (২৯) পিং মজনু মিস্ত্রি বাড়াই পাড়া(২) মোঃ শাকিল মিয়া (২৩) পিতামোঃ সাইফুল মিয়া (৩)মোঃ রাসেল মিয়া (৩৫)পিতা মোহাম্মদ সবুর উদ্দিন (৪) রিজু মিয়া (৩৩)পিতা মোঃ ইসাহাক আলী সকলের পশ্চিম কমোরনই থানা জেলা গাইবান্ধাগন এসে জানায় , জনৈক নুর আলম(২৮) পিতা নুরুন্নবী জ গাইবান্ধা তার বাড়িতে মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট মজুদ করে তার টিনের ছাপড়া ঘরে শুয়ে আছে। রাসেল ও রিজু কে দেখাইয়া রায়হান বলে মাদকদ্রব্য ইয়াবা ট্যাবলেট কোথায়, কোথায় আছে তা দেখাইয়া দিবে এবং বাড়িও দেখাইয়া দিবে । রাসেল ও রিজু কে ডিবি পুলিশ আলাদাভাবে জিজ্ঞাসাবাদকালে এস আই জহুরুল হক গোপনে নুর আলম সম্পর্কে প্রাথমিক তথ্য সংগ্রহ করে। বিষয়টি আঁচ করতে পেরে রায়হান ও শাকিল কৌশলে উক্ত স্থান থেকে পালিয়ে যায়। পরে রাসেল ও রিজু কে নিয়ে স্থানীয় মেম্বর, গণ্যমান্য ব্যক্তিদের সাথে নিয়ে নুর আলমের টিনের ট ছাপরা ঘরে গেলে রাসেল সুনির্দিষ্টভাবে বেড়ায় ঝুলানো শপিং ব্যাগে ও বেড়ার ভাঁজে পলিথিনের পোঁটলায় ইয়াবা আছে মর্মে দেখাইয়া দেয়। রাসেলের কথা বার্তা সন্দেহজনক হলে জিজ্ঞাসাবাদে উপস্থিত লোকদের সম্মুখে স্বীকার করে, কয়েকদিন আগে নুর আলম ও তার চাচা মজিবরের সঙ্গে জমিজমা নিয়ে দ্বন্দ্ব ও মামলা হলে নুর আলম জামিনে আসে । এতে ক্ষুব্ধ হয়ে মজিবরের স্ত্রী রানী বেগম আবারো মামলা দেয়ার জন্য রায়হান, শাকিল ,রিজু ও তার সঙ্গে গোপন পরামর্শ করে ।রানী বেগমের নির্দেশে রাসেল ও রায়হান গোপনে রাত ৮.০০ টার সময় নুর আলমের টিনের ছাপড়া ঘরে ইয়াবার পোটলা শপিং বেগের মধ্যে রেখে দেয় ।ডিবি পুলিশকে সংবাদ দিয়ে নুর আলম কে মাদক মামলায় ফাঁসানোর পরিকল্পনা করে। ঘটনার পর হতে রায়হান শাকিল ও রানী বেগম পলাতক আছে। আসামিদের বিরুদ্ধে গাইবান্ধা সদর থানায় মাদক মামলা দায়ের করা হয়েছে

আপনার মতামত লিখুন :