এই ছবিতে আমি আমার মাকে খুঁজে পাই – শাহাদাত হোসেন সেলিম

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৬:০৯ AM, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

এ ছবি টি আমি আমার এলবামে সেইভ করে রেখেছি। এ ছবিতে আমি আমার মাকে খুজে পাই। বাংলার মাকে খুজে পাই। আমার ছেলে,আমার বুকের মানিক মেহেদী হাসান কে খুজে পাই। মেহেদী হাসানকে কখনো আমি নাম ধরে ডাকি না,আব্বু,বাবা,পাপা,তুতু,তুতুপাপা,এবং
(আব্বুর সংক্ষিপ্ত) নামে ডাকি। মাঝে মাঝে আদর করে জড়িয়ে ধরতে চাই। ছেলে আমার হাড় বজ্জাত। কাছে আসতেই চায় না। লায়েক হয়ে উঠছে তো,তাই লজ্জা পায়,অথচ আমরা বাবাকে বাঘের মতো ভয় পেতাম।

আমার ছেলে যখন সামান্য বুজতে শিখেছে,তখন থেকে দেখলাম ক্রিকেটের প্রতি তার অনুরাগ,সে প্রায় বিশ্বের সব ক্রিকেটার কে চিনতো। মাঠে চলে যেত খেলতে। তার বয়স যখন ৬ তখন আমি লন্ডন গেলাম।তা কথা মতো নামী ব্যান্ডের একটি ক্রিকেট ব্যাট কিনলাম। লন্ডন থেকে দুবাই,কেনিয়া,মোম্বাসা,দুবাই,
মালেয়শিয়া,থাইল্যান্ড, সিংগাপুর,ঢাকা। নিরাপত্তার কারনে ব্যাট টি লাগেজে দিতে হয়েছে। প্রতি এয়ারপোর্টে আমি ভীষন টেনশন থাকতাম ব্যাট টি না খোয়া যায়। আমার সাথে ছিলো বেশ উচ্চ একটি সরকারী টিম।  বিষয়টি তারা বেশ উপভোগ করতো।

৯ বছর বয়সে মেহেদী হাসান ক্রিকেট খেলতে ১৫ দিনের জন্য অষ্টেলিয়া যায়। কি ভীষন হাহাকার আর শুন্যতা নিয়ে ঐ ১৫ দিন আমরা দিন পার করেছি তা বুজিয়ে বলার ক্ষমতা আমার নাই।

ছবির ঝর্না মায়ের একমাত্র চাওয়া তার পুত্র সিয়াম কে “বিকেএসপি” তে ভর্তি করানো। আমার যদি ক্ষমতা থাকতো তাহলে আমি তার সম্পূর্ণ প্রয়োগ করতাম। কিন্তু আমি ক্ষমতাহীন অতি ক্ষুদ্র মানুষ। আমি কায়মনোবাক্যে মহা ক্ষমতাবান মহান আল্লাহর দরবারে ঝর্না মায়ের মনোকামনা পূরনের জন্য আকুল প্রার্থনা করছি।আমিন।

লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি-এলডিপি মহাসচিব জনাব শাহাদাত হোসেন সেলিমের ফেসবুক থেকে সংগৃহীত।

আপনার মতামত লিখুন :