রোহিঙ্গাদের জিম্মায় বাংলাদেশী!

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ০৫:৪৯ AM, ১৪ সেপ্টেম্বর ২০২০

নিউজ ডেস্কঃ
মানিক সিকদার নামে একজন বলছেন, ভাসানচরে যাওয়া নিয়ে রোহিঙ্গারা বেশ বাড়াবাড়ি শুরু করছে।
ডয়চে ভেলের পাঠক ভাবনায় এমন আরো কয়েকজন ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। তারা রোহিঙ্গাদের আচরণ নিয়ে কথা বলেছে। এদের মধ্যে রায়ান খান নামে একজন বলেন, আমাদের দেশের কত মানুষের বসত বাড়ি ঘর ভিটা নেই। আর রোহিঙ্গাদের এইভাবে সুযোগ করে দেওয়ার পরেও তারা যেতে চাইছে না। তবে সরকারের এ ব্যাপারে এত নমনীয়তা দেখানোর কারণ বুঝতে পারছি না।

রোহিঙ্গাদের নিয়ে জাকির হোসেন নামে বলেন, একেই বলে ‘দুধ কলা দিয়ে সাপ পোষা।

রোহিঙ্গাদের ভাসানচরে বসবাসের সুযোগ দেয়াকে ভালো সিদ্ধান্ত বলে মনে করেন না মোহাম্মদ আরশাদ। তিনি বলেছেন, দুনিয়ার সব দেশে শরণার্থী শিবিরগুলি সীমান্ত এলাকায় বসবাস করে থাকে। এতে শরণার্থীদের মনের মধ্যে নিজ দেশে ফেরত যাওয়ার একটা ইচ্ছা থাকে। কিন্তু ভাসানচরে স্বাধীনভাবে বসবাসের সুযোগ দিলে তারা নিজ দেশে ফেরত যেতে চাইবে না এটা সাভাবিক।
নোয়াখালীর হাতিয়া উপজেলায় মেঘনা নদী ও বঙ্গোপসাগরের মোহনায় ভাসানচরের অবস্থান। সরকার নিজস্ব তহবিল থেকে দুই হাজার ৩১২ কোটি টাকা ব্যয়ে ভাসানচরে আশ্রয়ন প্রকল্প বাস্তবায়ন করেছে। জোয়ার ও জলোচ্ছ্বাস থেকে সেখানকার ৪০ বর্গকিলোমিটার এলাকা রক্ষা করতে ১৩ কিলোমিটার দীর্ঘ বাঁধ তৈরি করেছে। এক লাখ রোহিঙ্গার বসবাসের জন্য ১২০টি গুচ্ছগ্রামের অবকাঠামো তৈরি করা হয়েছে সেখানে।

তথ্যঃ সময় টিভি অনলাইন।

আপনার মতামত লিখুন :