কুপতলা ইউপি চেয়ারম্যানের বিরুদ্ধে অর্থ আত্মসাতের অভিযোগ

বার্তাকক্ষবার্তাকক্ষ
  প্রকাশিত হয়েছেঃ  ১২:৫৩ PM, ০৮ সেপ্টেম্বর ২০২০

মোঃশরিফুল ইসলাম সবুজ,স্টাফ রিপোর্টারঃ

গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাকের বিরুদ্ধে রাস্তার মাটি কাটার কাজ, ঘর দেয়া ও মাতৃত্বভাতার নামে হতদরিদ্রদের কাছ থেকে অর্থ আত্মসাৎসহ নানা অনিয়ম-দুনীতির অভিযোগ পাওয়া গেছে। এ ব্যাপারে চেয়ারম্যানকে প্রেরিত অর্থ ফেরতসহ ঘটনার প্রতিকার জানিয়ে জেলা প্রশাসক, সদর উপজেলা নির্বাহী অফিসার বরাবরে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন হতদরিদ্র নারীরা। মঙ্গলবার গাইবান্ধা প্রেসক্লাবের সাংবাদিকদের কাছে এসে দরিদ্র, অসহায় ও দু:স্থ নারীরা লিখিত আবেদনসহ অভিযোগের বিস্তারিত বিবরণ তুলে ধরেন।

কুপতলা ইউনিয়নের ৪নং ওয়ার্ডের স্কুলের বাজার ও ডাকুয়ারকুটি গ্রামের মৃত বাচ্চুর স্ত্রী আনোয়ারা বেওয়া, মৃত রফিকের স্ত্রী লাখি বেওয়া, মৃত ওয়াহেদের স্ত্রী করিমন বেওয়া ও বজলার রহমানের ছবি বেগম লিখিত অভিযোগে উল্লেখ করেন- কুপতলা ইউনিয়নের চেয়ারম্যান আব্দুর রাজ্জাক হতদরিদ্রদের কাছ থেকে ২০১৭ সালে ৫ বছর মেয়াদী রাস্তায় মাটি কাটার কাজ দেয়ার কথা বলে ২ লাখ ২০ হাজার টাকা হাতিয়ে নেয়। এরপর তাদেরকে কাজ না দিয়ে নানা রকমের তালবাহান করে আসছিল। এরই একপর্যায়ে ২০১৯ সালে ওইসব গৃহহীন দরিদ্র অসহায় দু:স্থ জনগোষ্ঠীকে পুনর্বাসনের লক্ষ্যে আধাপাকা ঘর দেয়া ও মাতৃত্বভাতার কার্ড দেয়ার কথা বলে প্রত্যেকের কাছে আরও সাড়ে ৭ হাজার টাকা করে ৩০ হাজার টাকাসহ মোট ৩ লাখ টাকা প্রতারণার মাধ্যমে আত্মসাৎ করে। এ ব্যাপারে তারা চেয়ারম্যানের কাছে একাধিকবার মাটি কাটার কাজ, আধাপাকা ঘর নির্মাণ ও মাতৃত্বভাতার কার্ড চাইতে গেলে চেয়ারম্যান তাদের কথায় কোন কর্ণপাত না করে নানা ধরণের হয়রানি করে আসছে। ফলে ওইসব অসহায় পরিবারগুলো মাটির কাজ, নতুন ঘর ও মাতৃত্বভাতা কোন কিছুই না পেয়ে মানবেতর জীবনযাপন করে আসছে।

আপনার মতামত লিখুন :